ঢাকা কেন্দ্রিক সব প্রকল্পে সিটি করপোরেশনের অনুমতি নিতে হবে

রাজধানী ঢাকাকে নিয়ে আর যত্রতত্র প্রকল্প গ্রহণ করে দীর্ঘ মেয়াদী ভোগান্তিতে ফেলা যাবে না বলে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

তিনি বলেছেন, ঢাকা কেন্দ্রিক আপনাদের যে কোন প্রকল্প যে কোন কার্যক্রম ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে সমন্বয় করে করতে হবে। আমাদের অনুমতি নিতে হবে। আমাদের পরিকল্পনার সাথে আপনাদের সমন্বয় করতে হবে। এর ব্যতিক্রম কোন কার্যক্রম আমরা করতে দিতে পারি না।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) দুপুরে নগর ভবনে মেয়র হানিফ মিলনায়তনে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট উত্থাপনকালে মেয়র এ কথা বলেন। আগামী অর্থ বছরের জন্য ৬ হাজার ১১৯ কোটি ৫৯ লাখ টাকার বাজেট দেন মেয়র।

ঢাকায় যেসকল সংস্থা কাজ করে তাদের উদ্দেশে মেয়র তাপস বলেন, যেসব সংস্থা ঢাকাকে নিয়ে কাজ করেন, ঢাকা কেন্দ্রিক আপনাদের যে কোন প্রকল্প, যে কোন কার্যক্রম ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে সমন্বয় করে করতে হবে। আমাদের অনুমতি নিতে হবে। আমাদের পরিকল্পনার সাথে আপনাদের সমন্বয় করতে হবে। এর ব্যতিক্রম কোনো কার্যক্রম আমরা করতে দিতে পারি না, যেটা ঢাকাবাসীর পক্ষে যাবে না। সুতরাং এগুলো দেখার দায়িত্ব আমাদের। ঢাকাবাসীর পক্ষে আমরা নিবিরভাবে সেটা দেখব। সুতরাং সকল সংস্থাকে অনুরোধ করব আপনারা যদি কোন প্রকল্প নেন তাহলে অবশ্যই অবশ্যই আগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে সমন্বয় করে নিতে হবে।

তিনি বলেন, যদি অনুমতি না নেওয়া হয় প্রকল্প বাস্তবায়নের পরবর্তিতে কোনো বাধা আসে সেটার জন্য আমরা দায় দায়িত্ব নেব না।

সরকারের কাছে আবেদন তুলে ধরে বলেন, ঢাকাবাসীর কল্যাণের লক্ষে সরকারের কাছে আবেদন ঢাকাকে নিয়ে যে কোনো প্রকল্প ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে দেবেন আমরা সেটা সঠিকভাবে পূর্ণ বাস্তবায়ন করব। কিন্তু যত্রতত্র অন্য সকল সংস্থাকে ঢাকার ওপরে কাটাকাটি করতে দেওয়া হবে না। ঢাকাকে নিয়ে ছেলেখেলা করার আর সুযোগ দেওয়া হবে না। যেটা করতে হবে দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার আওতায় করতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা সুনির্দিষ্ট সময় দিবে। আগামী বছর থেকে যেহেতু জুলাই এর আগে বাজেট করতে চাই, তেমনি সুনির্দিষ্ট তারিখ করে দেব সেই তারিখের মধ্যে সকল সংস্থার প্রকল্পের বিষয়ে ডিএসসিসিকে জানাতে হবে। ডিএসসিসি সেটা সমন্বয় করে সেই প্রকল্প বাস্তবায়নে যদি ঢাকাবাসীর পক্ষে হয় অবশ্যই বাস্তবায়ন করতে দেবো। কিন্তু এমন কিছু বাস্তবায়ন করা যাবে না যেটা ঢাকাবাসীর দীর্ঘমেয়াদী দুর্ভোগ হয় বা যেটার সুফল ঢাকাবাসী না পায়।

মেয়র বলেন, যেহেতু আমাদের অর্থ বছর জুন-জুন। তাই আমরা যেমন প্রকল্প নিয়ে কাজ করি অন্যান্য অন্যান্য সংস্থাও পহেলা সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকার আওতায় সকল প্রকল্প আমাদের কাছে দেবেন। আমরা সেগুলো সমন্বয় করে দেবো।

তাপস বলেন, কোন কর বৃদ্ধি না করেই আমরা বাজেটের যে লক্ষ্য নির্ধারণ করেছি, তা বাস্তবায়ন করবো।

পর্যায়ক্রমে ঢাকার জলাবদ্ধতার কাজ সিটি করপোরেশনই করবে বলে জানিয়ে বলেন, ঢাকাবাসী যাতে করে সুরাহা পায়, ঢাকাবাসীর যাতে সমস্য না হয়, ঢাকাবাসী সানন্দে তাদের কার্য়ক্রম করতে পারে তার মূল দায়িত্ব ঢাকা দক্ষিণ এবং উত্তর সিটি করপোরেশনের। যেহেতু আমাদের জবাবদিহিতা রয়েছে আমাদের দায়বদ্ধতা রয়েছে। জলাবদ্ধতা নিরসনে আমরাই পূর্ণ ভূমিকা পালন করব। আমরা এরই মাঝে প্রকল্প প্রণয়ন করেছি। সেখানে ১০ টি জলাশয় ও পুকুর নিজস্ব নিয়ন্ত্রণে নিয়ে পরিকল্পনা করতে চাই। পর্যাক্রমে জলাবদ্ধতা নিরসনে পূর্ণ দায়িত্ব নিয়ে ঢাকাবাসীকে জলাবদ্ধতা মুক্তিদিতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।